সোমবার,  ২৩ এপ্রিল ২০১৮  | সময় লোডিং...
প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি ২০১৬, ১৬:২১:০৪

ভ্রমণ বিলাসীদের পদচারণায় উৎসবমুখর আলতাদিঘি শালবন

আব্দুল্লাহ হেল বাকী, ধামইরহাট (নওগাঁ)
শীত যতই জেঁকে বসছে বনভোজনের আনন্দ আর ভ্রমণ বিলাসীদের পদচারণায় উৎসবমুখর হয়ে উঠছে ধামইরহাটের আলতাদিঘি ও শালবন। কুয়াশা আর তীব্র শীত পিকনিক পার্টিগুলোকে দমিয়ে রাখতে পারছে না। ছুটির দিনে বনভোজন বিলাসীদের ভিড় আরো বেড়ে যায়।
 
উত্তরাঞ্চলের বরেন্দ্রভূমি হিসেবে খ্যাত ভারতের সীমান্ত ঘেঁষা নওগাঁর ধামইরহাটে অবস্থিত প্রায় দুইশ বছরের প্রাচীন এক শালবন। এ বরেন্দ্রভূমির বিশাল শালবনটি ৬৫২একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত। এ প্রাচীন শালবনে শুধু শালগাছ নয় পাশাপাশি অন্য গাছেরও দেখা মিলে। প্রকৃতির অপূর্ব নিদর্শন আর চোখ জুড়ানো সৌন্দর্যের প্রাচুর্য নিয়ে শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে চিরসবুজের নজরকাড়া সৌন্দর্য বিলিয়ে যাচ্ছে শালবনটি। তাই মন জয় করা শালবনে প্রাণ জুড়াতে আসেন দূর-দূরান্তের অনেক অনেক ভ্রমণ বিলাসী। পিকনিক স্পটগুলো ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে মার্চের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত আবাল বৃদ্ধ বনিতার কলকাকলিতে মুখর থাকে। বিশাল শালবনটিকে ঘিরে লুকিয়ে আছে দেশের পর্যটন ক্ষেত্রের অনেক সম্ভাবনা।
 
শালবনটি গত ২০১১ সালে সরকার জাতীয় উদ্যান হিসেবে ঘোষণা করেন। বনের পথ যেখানে শেষ সেখানেই ভারত সীমান্তের কাঁটাতারের বেড়া। কাছাকাছি সীমান্তের পিলার। বেড়ার ওপারে দেখা যায় ভারতীয়দের কৃষি-কর্ম আর বিএসএফের টহল। এই বনের অন্যতম আকর্ষণ শালগাছকে জড়িয়ে উঠে গেছে হিংলো লতা, অনন্তমূল ও বনবড়ইসহ নানা লতাগুল্ম আর বনফুল। বনের ভেতরে প্রবেশ করতেই নাকে ভেসে আসে নাম না জানা অনেক রকমের বনফুলের মিষ্টি গন্ধ। আর মাঝে মাঝে আছে ঘন বেত বন। বেত গাছের সবুজ চকচকে চিকন পাতায় চোখ জুড়িয়ে আসে। এই বনে আছে সাপ, শিয়াল, খরগোস, বনবিড়াল, বনরুই ও বেজিসহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণী। পাখির কলতানে মুখরিত সমগ্র শালবন।
 
নওগাঁ শহরের বালুডাঙ্গা বাসষ্ট্যান্ড থেকে ৬০কিলোমিটার পথ পেরিয়ে যেতে হবে জেলার ধামইরহাট উপজেলা সদরে। পথে পড়বে মহাদেবপুর, পত্নীতলা উপজেলার সদর। ধামইরহাট থেকে মাত্র ৬কিলোমিটার পথ পেরুলেই দেখা মিলবে প্রকৃতির আপন খেয়ালে সাজানো নয়ন ভরা সেই প্রাচীন শালবনটি। ৬কিলোমিটার রাস্তা জুড়ে লালমাটির রাঙ্গাপথ। দূর থেকেই নজরে পড়বে সেই প্রাচীন শালবনটি। বনের দিকে যতই এগিয়ে যাবেন ততই অনুভূতি হবে রোমাঞ্চকর। পথের ধারে ছোট ছোট বসতবাড়ি সেগুলিতে আদিবাসীদের বসবাস। চোখে পড়বে বরেন্দ্রভূমির চারদিকে শুধু উঁচু-উঁচু শালগাছ। ভারত সীমান্ত ঘেঁষা এই শালবনটি যেন প্রকৃতির গোপন রহস্যে ঠাসা। এই বনভূমি সরকারের রিজার্ভ ল্যান্ড ফরেস্ট হিসেবে সংরক্ষিত। প্রাকৃতিক এই বনভূমির মাঝে নেই কোন কৃত্রিমতা।
 
নওগাঁর বরেন্দ্রভূমি ধামইরহাট উপজেলার মশইর মৌজার বিশাল শালবনটি সত্যিই অবাক করার মতো। আরো কথিত আছে, এক সময় শালবনটির মালিক ছিলেন কলকাতার পাথরঘাটার জমিদার অত্যানন্দ ঠাকুর। তিনি দৈবক্রমে অন্ধ হয়ে যান। ফলে তার স্ত্রী অক্ষয় কুমারী দেবী জমিদারী পরিচালনা করতেন। উপজেলার আড়ানগরে তাদের কাচারীবাড়ি ছিল (বর্তমানে বাড়িটি তহশিল অফিস হিসেবে ব্যবহ্নত হচ্ছে)।
 
বুনোপথ ধরে কিছুটা এগিয়ে যেতেই দেখা মিলবে শালবনের মাঝে বিশাল টলটলে জলের আলতাদিঘি। দিঘির এই প্রাকৃতিক বনভূমির চারপাশে ঝোপঝাড়। প্রকৃতি এখানে নিজ হাতে যেন সবকিছু সাজিয়েছে। তাই এখানে প্রতিদিনই আসে অনেক দূরের ভ্রমণ বিলাসীরা। এক নজর দেখতে কেউ বা পিকনিক করতে। শালবনের মাঝে জায়গা করে নিয়ে বড় বড় ঢিবি গড়ে তুলেছে উইপোকা। যা নিজের চোখে দেখলেও কেউ বিশ্বাস করতে চাইবে না তবে তা সত্য। লালচে রঙ্গের এই ঢিবিগুলো প্রবল বর্ষণেও নষ্ট হয় না। উইপোকারা নির্বিঘ্নে তাদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে যায় সারা বছর।
 
শালবনে বেড়াতে আসা পর্যটকদের নিরাপত্তা ও সহযোগিতার জন্য ২৪ জন জনবল নিয়োজিত রয়েছে সর্বক্ষণ। বর্তমানে এটি পর্যটন কেন্দ্র না হলেও প্রতিদিনই মুখরিত হয় বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা ভ্রমণ বিলাসীদের পদচারণায়। প্রকৃতির বনভূমি শালবনে কোন বিশ্রামাগার না থাকলেও বনের উত্তর ধারে অনেকটা ফাঁকা জায়গা রয়েছে। যারা বেড়াতে আসেন তারা এ ফাঁকা জায়গায় বসে নির্মল বাতাসে আরাম করেন। অনেকে সেখানেই রান্না করে খাবারের পর্ব সারেন। শালবনে গেলে চোখে পড়বে চারিদিকে নিঝুম স্তব্ধতা। দু’চোখে শুধুই সবুজ আর সবুজ। কানে আসবে জানা-অজানা পাখির ডাক। বরেন্দ্রভূমির এই প্রকৃতির রাজ্যে যারা আসবেন তাদের মন ভরে উঠবে প্রকৃতির অকৃত্রিম ভালোবাসায়। সারাটা জীবন ক্ষণিকের এই স্মৃতি ডেকে ফিরবে বার বার।
 
কালুপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা পিকনিকে বেড়াতে আশা কামরুন নাহার বলেন, এই স্থানটির কথা আমি বহুবার শুনেছি কিন্তু আসা হয়নি। তাই আজ এখানে এসে নিজ চোখে না দেখলে বিশ্বাসই করতাম না জেলায় এতো সুন্দর একটি শালবন রয়েছে। আর মাঝখানের দিঘিটি শালবনের সৌন্দর্যকে আরও বৃদ্ধি করেছে।
 
ধামইরহাট উপজেলার দায়িত্বে থাকা বনবিট কর্মকর্তা লক্ষণ চন্দ্র ভৌমিক বলেন, ভ্রমণ বিলাসীদের জন্য শালবনের জাতীয় উদ্যানটিতে ইতোমধ্যে ১৭০ হেক্টর জমিতে ৬৮ হাজার ওষধি গাছ লাগানো হয়েছে। সেই সাথে বেতের বাগান করা হয়েছে। এই উপজেলা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর। প্রতিদিন এই শালবন ও দিঘি দেখার জন্য শতশত লোকজন এসে থাকে বনভোজনের জন্য। আশা করছি খুব তাড়াতাড়ি এই উপজেলার চেহারাই পাল্টে যাবে এই শালবন ও দিঘি জন্য। এ পিকনিক স্পটের চারিদিকে সবুজ বনানীর মোহনীয় রূপ ভ্রমণ পিয়াসীদের পথের ক্লান্তি ভুলিয়ে দেয়।  
এ সংক্রান্ত সকল খবর
এই পাতার আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Powered by orangebd.com

close