মঙ্গলবার,  ২১ আগস্ট ২০১৮  | সময় লোডিং...
প্রকাশ : ০৮ জুলাই ২০১৬, ১০:৪০:১৮

গ্রিজম্যান নৈপুণ্যে ফাইনালে ফ্রান্স

অনলাইন ডেস্ক
আবারো একটি স্বপ্নের দ্বারপ্রান্তে ফ্রান্স। বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানিতে ২-০ গোলে হারিয়েছে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে উঠে গেছে স্বাগতিকার। ফ্রান্সের হয়ে দুটি গোলই করেন অঁতোয়ান গ্রিজমান।
 
অন্যদিকে বেশিরভাগ সময় আধিপত্য বজায় রেখেও পারল না জার্মানি। বৃহস্পতিবার রাতে মার্সেইয়ে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ম্যাচের সপ্তম মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার ভালো একটি সুযোগ পায় ফ্রান্স। ডি-বক্সের ভেতর থেকে গ্রিজমানের নিচু কোনাকুনি শট শরীর সবটুকু প্রসারিত করে ঝাঁপিয়ে ফেরান গোলরক্ষক মানুয়েল নয়ার।
 
ধীরে ধীরে প্রথমার্ধের খেলার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় জার্মানি। ত্রয়োদশ মিনিটে একটু কঠিন সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি জার্মান ফরোয়ার্ড টমাস মুলার। পরের মিনিটে এমরে কানের দূরপাল্লার শট লক্ষ্যেই ছিল। এবার ডানে ঝাঁপিয়ে তা ঠেকান ফরাসি গোলরক্ষক উগো লরিস।
 
একের পর এক আক্রমণ চালালেও প্রথমার্ধে গোল পায়নি জার্মানি; বরং শেষ পাঁচ মিনিটে কয়েকটি সুযোগ তৈরি করে স্বাগতিকরা। ৪২তম মিনিটে পাট্রিস এভরার পাসে অঁতোয়ান গ্রিজমানের শট সাইড নেটে জড়ায়।পরের মিনিটে অলিভিয়ে জিরুদের স্বার্থপরতায় এগিয়ে যাওয়ার দারুণ সুযোগটি নষ্ট হয়। বল নিয়ে গোলমুখে এগিয়ে ফাঁকায় দাঁড়িয়ে থাকা গ্রিজমানকে পাস দেননি আর্সেনালের এই ফরোয়ার্ড। এই সুযোগে বল বিপদমুক্ত করেন বেনেডিক্ট হুভেডেস।
 
অবশেষে প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে পেনাল্টিতে ফ্রান্সকে এগিয়ে দেন গ্রিজমান। নয়ারকে উল্টো দিকে পাঠিয়ে বাঁ দিক দিয়ে বল জালে পাঠান আতলেতিকো মাদ্রিদের এই ফরোয়ার্ড। বাস্টিয়ান শোয়াইনস্টাইগারের হাতে বল লাগায় স্পটকিকের বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি।
 
বিরতির পর সমানে সমান খেলতে থাকে ফ্রান্স। ৭২তম মিনিটে গ্রিজমানের দ্বিতীয় গোলে ব্যবধান দ্বিগুণও করে ফেলে স্বাগতিকরা। রাইট ব্যাক জসুয়া কিমিচের ভুলে ডি-বক্সে বলের দখল পান পল পগবা। তারকা এই মিডফিল্ডারের ক্রস নয়ার বিপদমুক্ত করতে পারেননি। বুটের টোকায় টুর্নামেন্টে নিজের ষষ্ঠ গোলটি করেন গ্রিজমান।
৭৪তম মিনিটে কিমিচের দূরপাল্লার শট ক্রসবারে লাগলে ব্যবধান কমানো হয়নি জার্মানির। দুই মিনিট পর ইউলিয়ান ড্রাক্সলারের ২৫ গজ দূর থেকে নেওয়া ফ্রি-কিকও একটুর জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।
 
৮৬তম মিনিটে নয়ার বরাবর শট নিয়ে হ্যাটট্রিকের সুযোগটি নষ্ট করেন গ্রিজমান। যোগ করা সময়ে কিমিচের হেড দারুণ দক্ষতায় ঠেকিয়ে ফ্রান্সকে গোল খেতে দেননি লরিস।
 
১৯৫৮ সালের বিশ্বকাপে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচের পর প্রতিযোগিতামূলক ফুটবলে জার্মানির বিপক্ষে এই প্রথম জিতল ফ্রান্স। আগামী রোববার সাঁ-দেনির ফাইনালে ঠিক হবে কে হবে ইউরোপ সেরা। সেখানে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর পর্তুগালের মুখোমুখি হবে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।
এ সংক্রান্ত সকল খবর
এই পাতার আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Powered by orangebd.com

close