সোমবার,  ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  | সময় লোডিং...
প্রকাশ : ০২ জুলাই ২০১৬, ১১:১৬:৫৪

প্রকল্পভুক্ত কর্মচারীদের বেতন স্কেল

শাহীদুল আযম
১৯৯৭ সালে বাস্তবায়িত ৫ম জাতীয় বেতন স্কেল থেকে সরকারি উন্নয়ন প্রকল্পে নিয়োজিত কর্মচারীদের ক্ষেত্রে বেতন স্কেলের পরিবর্তে সাকুল্য বেতন প্রথা চালু করা হয়-যা আজও বিদ্যমান। জাতীয় বেতন স্কেলের সমপদ ও গ্রেডের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সংশ্লিষ্ট গ্রেডের প্রারম্ভিক বেতনের সঙ্গে আনুষঙ্গিক ভাতাদি যুক্ত করে সাকুল্য বেতন নির্ধারণ করা হয়। প্রকল্পে নিয়োজিত সব ধরনের পদে এসব অস্থায়ীভাবে নিয়োজিত কর্মচারীরা বছরের পর বছর চাকরিতে বহাল থাকলেও তারা পদোন্নতি, বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি, টাইম স্কেল বা সিলেক গ্রেড প্রাপ্তির সুযোগ থেকে বঞ্চিত। ফলে প্রকল্পে নিয়োজিত এসব কর্মচারী সমগ্র কর্মজীবনে দারুণ হতাশা ও অর্থকষ্টে ভোগেন এবং অনেকে মানবেতর জীবনযাপনে বাধ্য হন। অবশ্য কয়েক বছর পর পর সরকারি কর্মচারীদের জন্য নতুন কোন জাতীয় বেতন স্কেল ঘোষণা করা হলে প্রকল্প কর্মচারীরাও কিছুটা বাড়তি আর্থিক সুবিধার মুখ দেখার সুযোগ পেয়ে থাকেন। সাধারণত সরকারি কর্মচারীদের জন্য নতুন জাতীয় বেতন স্কেল ঘোষণার কয়েক মাস পর সরকারি উন্নয়ন প্রকল্পের কর্মচারীদের জন্য পৃথক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে বেতন গ্রেড বাস্তবায়নের ঘোষণা দেয়া হয়।
 
সম্প্রতি ঘোষিত ৮ম জাতীয় বেতন স্কেলে সরকারি রাজস্ব বাজেটভুক্ত কর্মচারীদের জন্য প্রচলিত বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি প্রথা পরিবর্তন করে শতকরা হারে বার্ষিক বেতন বৃদ্ধির সুযোগ দেয়ায় প্রতিবছর তাদের বেতন চক্র বৃদ্ধি হারে বর্ধিত হবে। এতে করে তারা তুলনামূলকভাবে আগের চেয়ে বেশি করে আর্থিকভাবে লাভবান হবেন। সরকারি উন্নয়ন প্রকল্পে নিয়োজিত কর্মচারীদের প্রকল্প বাস্তবায়নে তাদের অবদান, চাকরির বয়স, আর্থিক দুরবস্থা ইত্যাদির আলোকে মানবিক বিবেচনায় একই নিয়মে শতকরা হারে বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি প্রথা চালু করার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
 
শাহীদুল আযম
উত্তর টোলারবাগ, মিরপুর, ঢাকা
এ সংক্রান্ত সকল খবর
এই পাতার আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Powered by orangebd.com

close