রোববার,  ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭  | সময় লোডিং...
প্রকাশ : ১৯ জুলাই ২০১৬, ১২:১০:১২

ওমানে বাংলাদেশি নারী গৃহকর্মীদের নরকজীবন

অনলাইন ডেস্ক
ওমানে বাংলাদেশের নারী গৃহকর্মীরা চরম নির্যাতন আর আবমাননার মধ্যে আছেন৷ তাদের সঙ্গে ক্রীতদাসের মতো আচরণ করা হয়৷ অনেকেই সেখানে আটক বা ‘বন্দি' আছেন ৷ দেশে ফিরতে চাইলেও ফিরতে পরছেন না৷
 
যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডাব্লিউ) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য দিয়েছে৷ বাংলাদেশের জনশক্তি রপ্তানিকারীদের সংগঠন – বায়রার সাবেক মহাসচিব আলি হায়দার চৌধুরী বলেছেন, সরকারে উচিত হবে দ্রুত তাদের আইনগত সহায়তা দিয়ে দেশে ফেরত আনা৷
 
এইচআরডাব্লিউ কাতারে অবস্থানরত বাংলাদেশি কয়েকজন নারী গৃহকর্মীর সাক্ষাত্‍কারও প্রকাশ করেছে৷ তাঁদের একজন আসমা ২০১৫ সালের মে মাসে আরব আমিরাতে যান৷ তিনি জানান, তাঁর রিক্রুটিং এজেন্ট তাঁকে একজন ওমানি ব্যক্তির কাছে বিক্রি করে দেন, এরপর তাঁর পাসপোর্ট আটকে রেখে ওমানে নিয়ে যান৷ সেখানে তাঁর বাড়িতে দিনে ২১ ঘন্টা কাজ করতে বাধ্য করা হতো, ঠিক মতো খাবার দেয়া হতো না এবং যৌন হয়রানি করা হতো৷ আসমাকে সেখানে এক টাকাও বেতন দেয়া হয়নি৷ ওই ওমানি ব্যক্তি আসমাকে জানায়, সে ১ হাজার ৫৬০ রিয়েল (৪ হাজার ৫২ ডলার) দিয়ে তাঁকে (আসমা) কিনেছে৷ এখান থেকে মুক্তি চাইলে সেই টাকা আসমাকে দিতে হবে৷
 
আরেক বাংলাদেশি গৃহকর্মী বাবলি জনিয়েছেন, তাকে ওমানে যৌন নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে৷ তাঁর কোনো সাপ্তাহিক ছুটি ছিল না৷ বসার সময় পর্যন্ত ছিল না৷ তিনি যে বাড়িতে কাজ করতেন, সেখানকার মালিক সবসময় তাঁকে গালাগালি করতো বলেও জানিয়েছেন বাবলি৷
 
পারভীন জানিয়েছেন, ওমানের বন্দর নগরী সোহারে কাজ করতেন তিনি৷ সেখানে ১৬ মাস কাজ করেছেন৷ প্রতিদিন ভোর ৪টা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত কাজ করতে হতো৷ তাঁকে প্রতিমাসে মাত্র ৫০ ওমানি রিয়েল (১৩০ ডলার) দেওয়া হতো৷
 
আরেক বাংলাদেশি গৃহকর্মী মমতা জানান, তিনি যে বাড়িতে কাজ করতেন সেখানকার মালিক তাঁকে মারধর করতেন৷ তিনি পুলিশের কাছেও এ বিষয়ে অভিযোগ করেছিলেন৷ কিন্তু পুলিশ তাঁকে আবার ওই মহিলার কাছেই ফেরত পাঠিয়েছিল৷ এরপর তাঁকে তালাবদ্ধ করে রাখতেন ওই মহিলা৷ একবার তাঁকে আট দিন ধরে একটি রুমে বন্দি করে রাখা হয়েছিল৷ তখন তাঁকে খেজুর পাতা এবং পানি ছাড়া আর কিছু খেতে দেওয়া হয়নি৷
 
হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এ রকম ৫৯ জন অভিবাসী গৃহকর্মীর সাক্ষাত্‍কার নিয়েছে৷ তাঁদের অনেকেই বলেছেন যে, তাঁদের পাচার করে জোর করে কাজে বাধ্য করা হচ্ছে৷ তাঁদের কর্মক্ষেত্রের মালিকরাও বলেছেন, তাঁদের তারা কিনে নিয়েছেন৷
 
গত বুধবার প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ জানিয়েছে, ওমানে ১ লাখ ৩০ হাজার বিদেশি শ্রমিক রয়েছেন৷ ফিলিপাইন, ইন্দোনেশিয়া, ভারত, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, নেপাল, ইথিওপিয়াসহ এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে নারী গৃহকর্মীরা উন্নত জীবনের আশায় মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে কাজ করতে যান৷
 
তাদের মধ্যে কিছু কর্মী বাস্তবে একটি ভালো কাজের সন্ধান পেলেও বাকিরা চরম অমানবিক অবস্থায় কাজ করতে বাধ্য হন৷
 
ওমানের কাফালা পদ্ধতির কারণে অভিবাসী শ্রমিকদের হয়রানি ও নির্যাতনের সুযোগ পান মালিকরা৷ ওমানের অনেক বাড়িতে বিদেশি গৃহকর্মীরা বন্দি রয়েছেন৷ দাসত্ব যৌন নির্যাতন, মারধর, বেতন না দেয়ার মতো অনেক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন তারা৷
 
বায়রার সাবেক মহাসচিব আলি হায়দার চৌধুরী জানান, এখানে দু'ধরণের সমস্যা রয়েছে৷ এক শ্রেণির গৃহকর্মী আছেন যাঁরা প্রশিক্ষণ ছাড়াই সেখানে গিয়েছেন৷ ফলে তাঁরা সেখানকার কাজে খাপ খাওয়াতে না পেরে দেশে ফিরতে চাইছেন৷ আর আরেক অংশ আসলেই নির্যাতন, যৌন নির্যাতন এবং বেতন না পাওয়ার ঘটনার শিকার হচ্ছেন৷
 
তিনি বলেন, এই নারী গৃহকর্মীদের অপরিকল্পিতভাবে সেখানে পাঠানো হয়েছে৷ ফলে এই অমানবিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে৷ যাঁরা অভিযোগ করছেন তাঁদেরও আটক রাখা হচ্ছে, কারণ, অভিযোগ নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তাঁদের সেখানে রাখা হচ্ছে৷
 
বায়রার সাবেক মহাসচিব আরো বলেন, সরকারের উচিত হবে দূতাবাসের মাধ্যমে আইনি সহায়তা দিয়ে বাংলাদেশের যেসব গৃহকর্মী নির্যাতিত হচ্ছেন, আটক আছেন তাঁদের দেশে ফেরত আনা৷
 
তিনি আরো বলেন, গৃহকর্মীদের ২০ ঘণ্টা মালিকের বাড়িতে না রেখে কাজ শেষে তারা যাতে ডরমিটরিতে থাকতে পারেন, সেই ব্যবস্থার দিকে যেতে হবে৷
এই পাতার আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Powered by orangebd.com

close